কালোজাদু-পৃষ্ঠা-৫৭+৫৮

0Shares

উদ্ধারকৃত প্রাচীন  ডেডসি স্ক্রোল

তবে এখনকার পর্যন্ত গবেষনামতে সকল ভাষার মূল পাওয়া যায় ইন্দোইউরোপীয়ান ভাষা(এই ভাষাগোষ্ঠীর প্রাচীন লিপি ব্রাক্ষ্মী লিপি) থেকে । আমাদের বাংলা ভাষার সাথে দেখবেন আসাম ও উড়িষ্যার ভাষার মিল আছে । এগুলো ইন্দো ইরানীয় ভাষাগোষ্ঠীর সদস্য ।ভাষার উৎপত্তি ও  উদাহরন অনেক আছে । বোঝবার জন্য সহজ দুটো উদাহরন দিই । যেমন আমরা যেটা mouse বা ইদুর বলি সেটা লতিনা ও গ্রীকে muus,  রুশ ভাষায় mish, সংস্কৃতে মূস বা মূষিক । আবার ইংরেজী নোজ শব্দটা লাতিনে nass, রুশ ভাষায় nos, সংস্কৃতেও নাস বা নাসারন্ধ্র । আবার আমরা বাংলা বলি বমি ইংরেজীতে সেটা ভমিট । আবার বিশ্বের সৃষ্টিতত্বের প্রচলিত অনেক কথাতেও মিল পাওয়া যায় । আমাদের ইসলাম ধর্মের নুহ আঃ এর মহাপ্লাবন এর কাহিনীর সাথে হিন্দু ধর্মের বশিষ্ঠমুনি ও মৎসঅবতার কাহিনী প্রায় এক ।বিজ্ঞানমতে সময়কালটা ১০,০০০ বছর আগের হবুতি সন বা কোন গবেষকের মতে ৪৫০০ বছর আগের ।একেবারে একরকম উপকথা প্রচলিত আছে লাতিন আমেরিকার কয়েকটি দেশে তবে ভিন্ন নামে । তবে

(৫৭)

দুঃখিত নাম মনে করতে পারলাম না এই মুহুর্তে।এ থেকেই বোঝা যায় ভাষার উৎপত্তি – বিকাশ ও ধবংশ সম্বন্ধে ও মানবজাতির উৎপত্তি সম্বন্ধে বা আদিপিতা একজনই  ।

         ডাইমেনশন বা মাত্রা -ভূত-প্রেত -রুহ ও তার                                                           অস্তিত্ব তথা প্যারানরমাল জগৎ  – আমাদের দেখার জন্য স্রষ্ঠা দুটো চোখ দিয়েছেন । এই দুটি চোখের সাহায্যে আমরা দেখছি পৃথিবীর সকল সৌন্দর্য্য । চোখ মেলতেই আমাদের সামনে ভেসে ওঠে সুন্দর সুনীল আকাশ, রাতের আকাশের জ্যোৎস্না ভরা চাঁদ, হাজারটা তাঁরাময় আকাশ , শ্রাবণের বৃষ্টিস্নাত মেঘের দিন, ভোরের সূর্যোদয়, গোধুলির সূর্যাস্ত , নীল সমুদ্রের সৌন্দর্য , ওই বন-পাহাড় এর অবারিত সৌন্দর্য, বাঘ, টিয়া, ময়ুর , চিত্রল হরিণ, স্রষ্ঠার সৃষ্টি কত সুন্দর জীব জগত এই সবই দেখছি অমুল্য এই চোখের কল্যানে ।ভাবুনতো আজ থেকে আপনার চোখের দৃষ্টিশক্তি নেই । তাহলে এক কথায় আপনার কাছে পৃথিবী হয়ে পড়বে মূল্যহীন ।আর আমরা চোখে যা দেখি সেটাই বাস্তব । আমরা বিশ্বাস করি আমাদের চোখ যা দেখে আর কান যা শোনে তাই বাস্তব ।

         আসলেই কি তাই ? আমাদের চোখ কি সব দেখতে পায় ? আমাদের কান কি সব শুনতে পাই ? মানুষের শ্রাব্যতার সীমা ২০(বিশ) থেকে ২০,০০০(বিশ হাজার ) হার্জ । ২০ হার্জ এর নিচে ও ২০,০০০ হার্জ এর উপরের শব্দ মানুষ শুনতে পাইনা ।এর উপরেও তো শব্দ আছে । কুকুর ৩৫০০০ (৩৫ হাজার হার্জ ) পর্যন্ত শব্দ শুনতে পাই , আর বাদুর সর্বোচ্চ ১০০০০০(এক লাখ হার্জ ) পর্যন্ত শব্দ শুনতে পাই ।আমাদের যদি আরো বেশি কম্পাঙ্কের শব্দ শোনবার ক্ষমতা থাকতো তবে আমরা হয়তো অনেক অজানা জানতে পারতাম অথবা অনেক শব্দ সহ্য না করতে পেরে মারা যেতাম । কিছু প্রজাতির তিমি মাছ মাত্র ০৭(সাত) হার্জ কম্পাঙ্কের সাউন্ড শুনতে পাই পানিতে, যাকে বলে ইনফ্রাসনিক সাউন্ড । আমাদের শরীর বিশেষ করে আমাদের মস্তিষ্ক চালাতে ২০ ওয়াট বিদ্যুৎ এর দরকার । এখন তো

(৫৮)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

0Shares

Facebook Comments

error: Content is protected !!