কালোজাদু-পৃষ্ঠা-১১৯+১২০

0Shares

শারিরীক শক্তির প্রমান হিসেবে ১১ মণ ওজনের কাঠের গুড়ি উঁচু করে বয়ে নিয়ে যাওয়া,এক টানা ১৫-২০ কিলোমিটার দৌড়, একটানা ০৪ ঘণ্টা সাতার কাটার রেকর্ড আছে তার । অসম্ভব শক্তিশালী খাদক এই মানুষটি ১৯৭৩ সালে জন্ম গ্রহন করেন। উনাকে কি ঠিকমতো কোচ করলে বাংলাদেশ থেকে গর্ব করার মত একজন কুস্তিগির হতে পারতেন না ?

১৯৭৫ সালের ০৩ রা এপ্রিল। দৈনিক বাংলা নামক একটি জাতীয় পত্রিকাতে একটা খবর ছাপা হয়। খবরটি হল একজন অদ্ভুত পিশাচ মানুষ কে নিয়ে। নাম তার খলিলুল্লাহ ।

(১১৯)

নর মাংশ খেকো খলিলুল্লাহ

কি করতো সে জানেন ? দু একদিন পরপরই তার মৃত মানুষের কলিজা অথবা মাংশ খাবার প্রয়োজন হতো । মানুষের মাংশ না খেতে পেলে সে পাগল হয়ে যেতো । সব সময় মর্গের পাশে বা নতুন কবরের পাশে সে অবস্থান করতো । ২০০৫ সালে স্বাভাবিক মৃত্যু হয় তার । কেন মানুষ মানুষখেকো হয়, এ রকম এক গবেষণাতে দেখা গেছে কুরু নামক একটা রোগের প্রতিরোধী জিন পৃথিবীর প্রায় সকল মানবজাতি বয়ে বেড়াচ্ছে।কারণ মানুষের মাংশ খেলে কুরু(laughing sickness শেষে সর্বশরীর প্যারালাইসিস)নামক রোগটি হতে পারে। আর স্বভাবত মানুষের শরীর এমন যে সে যে কাজটি করে সেই কাজ বা খাদ্যে যদি কোন জীবাণু থাকে তবে মানব শরীর স্বভাবগত কারণে তার এন্টিবডি তৈরি করে।এই রোগ প্রতিরোধী জিন পাবার কারণে বলা হলো কোন এক সময় সব মানুষ কি মানুষখেকো ছিলো তাহলে ? ব্যাপারটা রহস্যময় |

(১২০)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

0Shares

Facebook Comments

error: Content is protected !!