কালোজাদু-পৃষ্ঠা-১১৭+১১৮

0Shares

         হঠাৎ করে ১০ বছর বয়স থেকে তিনি এরকম ক্ষমতার অধিকারী হন ।সাধারণত যেটি যেকোন মেডিকেল ডায়াগনসিস এর সমতুল্য। ধরুন এক্সরে দিয়ে মানুষের শরীরের ভিতরের বিভিন্ন হাড়ের চিত্র দেখা সম্ভব।কিন্তু যখন ধরুন আপনার পাকস্থলী তে আলসার এর ক্ষত আছে সেটা দেখতে যে প্রযুক্তি ব্যাবহার করা হয় তাকে বলা হয় এন্ডোস্কপি। আর এই এন্ডোসকপির কাজটি নাতাশা শুধু মাত্র চোখের দৃষ্টিতে করে ফেলতেন।২০০৪ সালে ডিসকভারি চ্যানেল নাতাশা কে নিয়ে একটি ডকুমেন্টারী তৈরি করে।একই সালে ইংল্যান্ড এর দি সান পত্রিকা নাতাশা কে ইংল্যান্ড এ নিয়ে আসে।সেখানে সদ্য কার দুর্ঘটনাতে আক্রান্ত একজন মহিলা কে নিয়ে আসা হয়, নাতাশা তখন দুর্ঘটনাতে পতিত মহিলা টিকে দেখে নির্দিষ্ট করে  বলেন ওনার শরীরের কয়েকটি যায়গাতে ফ্রাকচার আছে এবং কয়েকটি ধাতব পিন ওনার শরীরে ঢুকে গেছে ।পরে মহিলাটিকে এক্সরে এবং স্ক্যান করে দেখা যায় যে নাতাশার কথা এবং রিপোর্ট একই কথা বলছে ।এভাবে তিনি নিউইয়র্ক এর সাইকোলজি এর প্রোফেসর রে হীমান এর নেওয়া এনাটমিকাল মুভমেন্ট এর পরীক্ষাতে ১০০ % নিখুত ভাবে উত্তীর্ণ হন এবং জাপান এর টোকিও ইলেকট্রিক্যাল ইউনিভার্সিটি এর প্রোফেসর ইওশি মাচি এর নেওয়া পরীক্ষাতেও উত্তীর্ণ হন ।এর মাঝে হঠাৎ অপ্রাসঙ্গিক একটা প্রশ্ন করি, মানুষের ভিতর বর্তমানে একটি কথা প্রচলিত আছে মোবাইল টাওয়ার আসবার পর নাকি দেশি নারিকেল গাছের নারিকেলের ফলন কমে গেছে, কথাটা কি সত্যি ? যদি সত্যি তাই  হয় তবে সেটা কেন হয় ?

এতক্ষন ওয়ান্ডার গার্ল নাতাশার ব্যাপারে যে কথা গুলো বলা হলো সেটা আসলে কিভাবে তিনি পেলেন। এটা কি তার চোখে উপস্থিত বা তৈরি হওয়া কোন জিনোমের  উপস্থিতি ? নাকি কোন মন্ত্র বা অলৌকিক অশরীরী কারো তার সাথে উপস্থিতি। আবার মালয়েশিয়ার লীউ থো লিন কে বলা হয় চুম্বক মানব। তিনি সর্বোচ্চ ৩৬ কেজি পর্যন্ত ধাতব বস্তু কোন দড়ি বা আঠার সাহায্য ছাড়াই নিজের শরীরের সাথে আটকে রাখতে পারেন ।

(১১৭)

         যেটা চুম্বক ছাড়া কোনোভাবেই সম্ভব নয় ।তাছাড়া বিজ্ঞানীরা ওনার শরীর স্ক্যান করে বা পরীক্ষা করে কোন লুকানো চুম্বক ,বা চুম্বক ক্ষেত্রের উপস্থিতি পাননি।

ভিয়েতনাম এর- থাই গক-(১৯৪২) আর আমেরিকার আল হারপিন(১৮৬২-১৯৪৭) এই দুজন লোকের  একজন ৪৭ বছর আর একজন জীবনে কোনদিন ঘুমাননি।যদিও তাদের না ঘুমান নিয়ে বিতর্ক  আছে ।

আবার -উয়িম হফ- ( ১৯৫৯- )নামক নেদারল্যান্ড এর একজন বাক্তি যিনি বরফমানব নামে পরিচিত । -২০(মাইনাস ২০ ডিগ্রি) ডিগ্রি হিমাঙ্কের বরফের ভিতর অনায়াসে তিনি ঘণ্টার পর ঘণ্টা ডুবে থাকতে পারেন ।বলা হয় এই অসাধ্য সাধন তিনি শিখেছেন প্রাচীন তিব্বতের টুমো পদ্ধতির ধ্যান শিখে ।

আবার জাপানের -ইসাও মাচির-দিকে যদি আপনি ১৬০ km/h গতিতে একটা অতি ক্ষুদ্র কোন কিছু মানে একটা ছোলার দানা যদি ছুড়ে দেন তবে তিনি সেটিও তার হাতে থাকা সামুরাই তলোয়ার দিয়ে দুভাগ করে কেটে ফেলবেন !আর যদি একটি টেনিস বল  ৮৬০ km/h গতিতে ছুড়ে মারেন তবে তিনি সেটিও তার তলোয়ার দিয়ে দুভাগ করে ফেলবেন ।অবিশ্বাস্য নয় কি ব্যাপারটা । যেখানে ক্রিকেটে ব্যাটসম্যান রা ১৬০ গ্রাম এর বেশ বড় একটা বলকে বড় একটা লম্বা চওড়া ব্যাট দিয়ে ১৩০ গতিতে এলেও মিস করে ফেলেন ।   

আমাদের দেশের রাজশাহীর বাঘা উপজেলাতে –বাবুল আক্তার – নামে একজন ব্যাক্তি আছেন যিনি এক বসাতে ১৮ কেজি খাসীর মাংশ এবং ১০০ টি মুরগীর ডিম খেতে পারেন । যদিও এখন বয়সের কারনে তিনি এখন খাওয়া কমিয়ে দিয়েছেন তবুও তার এই খাওয়া রেকর্ড হিসেবে রয়েছে ।

(১১৮)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

0Shares

Facebook Comments

error: Content is protected !!