কালোজাদু-পৃষ্ঠা-৩২৪

0Shares

         ঠিক এই কারনেই দিন এর দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে । এবার বুঝুন ব্যাপারটা যদি দিনের দৈর্ঘ্য কম বা বেশি হয় তবে সেটা অবশ্যই পৃথিবীর প্রাণী , আবহাওয়া এবং জলবায়ু কে ব্যাপক আকারে প্রভাবিত করবে ।বিদ্যমান প্রাণী জগতের ধ্বংস ,বিবর্তন , এবং নতুন  সৃষ্টি হবে ।

তাহলে এই বইটি থেকে অমিমাংশীত ও দীর্ঘকাল ধরে সত্য না মিথ্যার বিতর্ক চলে আসা বিষয়গুলোতে যে বিষয়ে যে সিদ্ধান্তে আসা গেলো  –

**** কালযাদু বা গুপ্তবিদ্যা –  এ প্রসঙ্গে বিভিন্ন জনশ্রুতি ও কুসংস্কার মুলক প্রচলিত কয়েকটি গল্প কালযাদু কি এবং কেন বোঝবার সুবিধার্থে দিয়েছি ।মুলত কালযাদু বা ব্ল্যাক ম্যাজিক বলে কিছু নেই সেটাই বলেছি । এবং বলেছি যদি এরকম কিছু থেকে থাকে এবং সেটাতে যদি কারো জানামতে নিশ্চিত কাজ হয়ে থাকে তবে সেটা অবশ্যই বিজ্ঞানের বর্তমান সংগ্রহের আড়ালে থেকে থেকে যাওয়া কোন বিদ্যা । এই বিদ্যার বড় উদাহরণ হ্যারি হুডিনি , পিসি সরকার , ডায়নামো , ক্রিস এন্জেল । যদিও এই রহস্যময় বিদ্যাকে [[ হতে পারে পিছনে থাকা ভিন্ন ডাইমেনশনের অদৃশ্য কোন সৃষ্টির সাহায্য কে বা অনাবিষ্কৃত ফিফথ ফোর্সের কোন ধরন থেকে সাহায্য তারা পেয়ে থাকেন ]] তারা বার বার স্টেজের কারিশমা , স্টেজ পার্ফর্মেন্স বা বিজ্ঞানের মজার খেলা বলে এড়িয়ে গিয়েছেন ।মূলকথা এটা বলেছি যে “বিজ্ঞান আর কালোজাদু ভিন্ন কিছু নয়” । বিজ্ঞান সেটাই যে বিদ্যার ব্যবহার বা সুবিধা আমাদের সবার জানা এবং যখন তখন ইচ্ছা করলেই আমরা পাচ্ছি । আর বিজ্ঞানের যে সাইডটা মানুষ জানেনা , মানুষের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত নয় , চিরকাল লোকচক্ষুর আড়ালে বা বিশেষ কোন শ্রেণীর হাতে রহস্য হয়েই থাকছে সাধারনের কাছে যে সেটা আছে কি নেই ? কাজ হয় কি না হয় ? মোট কথা বিজ্ঞানের আলোকিত , প্রকাশ্য ও সার্বজনীন ব্যবহারের অংশটাই আধুনিক সভ্যতা , আর লোকচক্ষুর আড়ালে , গুপ্ত ও ব্যবহার সীমিত ক্ষতিকর ও ভয় এবং রহস্যে ঘেরা  অংশটুকুই কালোজাদু ।

(৩২৪)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

0Shares

Facebook Comments

error: Content is protected !!