কালোজাদু-পৃষ্ঠা-১০১+১০২ | MEHBUB.NET

কালোজাদু-পৃষ্ঠা-১০১+১০২

ইগনোর করি, বাস্তবতা কি জিনিস, কত নির্মম, বাস্তবতার কোপে না পড়েই আমরা যা না তাই বলি, আমাদের ভিতর কেমন একটা হামবড়া ভাব প্রবল, ঘরে বসে টিভি সেটের সামনে বসে যখন আপনার প্রিয় দলের ব্যাটসম্যানের স্ট্যাম্প কখনো ১৫৫ কিলো গতির বোলারের করা বলে উড়ে যায় ।তখন আপনি বিজ্ঞের মত গাল পাড়তে থাকেন, অমুক প্লেয়ার কে দিয়ে হবেনা, কানা বলটা একটু দেখে খেলবিনা !বলটাতো তোর ব্যাট সোজা যাচ্ছিলো, আসুন একটা হিসাব করি,  আপনি বা আমি কি কোনদিন ১৫০-১৬০ গতির বল কাকে বলে জানি ? ১২৮ কি.মি গতি তো ক্রিকেট পেস  বোলিংয়ে কোন গতিই না, তো সেই গতির বল যখন বোলারের হাত থেকে উড়ে এসে পিচ টাচ করে তখন ব্যাটসম্যানকে বলটাকে কি করে খেলতে হয় জানেন ? বলটা  খেলার জন্য জন্য মাত্র 0.27 sec/(০.২৭ সেকেন্ড)সময় পাই ব্যাটসম্যান,মানে এর মাঝে ব্যাট চালাতে না পারলে বলটা অনর্থক রানশূন্য হিসেবে উইকেট কিপার এর হাতে চলে যাবে ।0.27 sec/(০.২৭ সেকেন্ড)সময় মানে ০১ সেকেন্ড এর অর্ধেকের ও কম সময়, তো  ভাইয়েরা এই আধা সেকেন্ড এর কম সময়ে বলটা শুধু দেখতে পেলে হবেনা, আধা সেকেন্ডের কম সময়ের ভিতর বলটা কোথায় পড়লো দেখতে হবে, আবার বলটা যদি স্ট্রেট না এসে ইনসুইং, আউটসুইং, স্লোয়ার, কাটার, ইয়র্কার আসে কিনা সেটাও বুঝতে হবে, এবার বোলারের ডেলিভারির ধরন অনুযায়ী শট খেলতে হবে, পুল, ফ্লিক, না স্কুপ কি শট খেলা যায় সেটাও ওই আধা সেকেন্ডের ভিতরের সিদ্ধান্তে খেলতে হবে, আবার ফিল্ডারদের অবস্থান, কত বলে দলের কত রান দরকার সে টেনশনও থাকে ব্যাটসম্যানের মাথায়, এখন একটা ডু অর ডাই পরিস্থিতিতে নিজেকে কল্পনা করি, ১২ বলে ৩০ রান লাগবে, উইকেটে একমাত্র সেট ব্যাটসম্যান আপনি, এটা লাস্ট উইকেট, আপনার অপর প্রান্তে যে ম্যান  আছেন তিনি বোলিং ছাড়া ব্যাটিংয়ের টাও বোঝেননা, আপনার দল বিশ্বকাপের ফাইনালে, এই প্রথমবার ফাইনালে উঠেছে, আপনার চোখে ভেসে উঠলো দেশে আপনাকে টিজ করা কয়েকজন নিন্দুক টিভি সেটের সামনে বসে আছে, যারা

(১০১)

আপনার খেলা নিয়ে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে বসে সব সময়, আরো ভাবছেন দর্শক যে পাগলের পাগল, হেরে গেলে আমার বাড়ি ভাংচুর করবে, আবার আপনার দলের সিলেকশন কমিটিতে কয়েকজন আছেন যারা আপনাকে বাদ দেবার একটা ছুতো খুজছেন, দল হারলে আপনি বাদ আর আপনার দলের টপ অর্ডার-মিডল অর্ডাররা ঠিকমতো ব্যাটিং করলে আপনাকে এত ভাবতে হতোনা । ওদিকে খেলার ভেণ্যু বাইরের  দেশের কোন স্টেডিয়াম, আপনার নাম ভেসে আসছেনা গ্যালারী থেকে, লাখ খানেক দর্শক সিংহনাদে গর্জন করে উঠছে জনসন ও স্টার্ক এর নামে, গো জনসন, গো স্টার্ক, প্রথম ওভারটা মিশেল জনসন, পরের টা মিশেল স্টার্ক এর, সর্বোচ্চ গতি, সর্বোচ্চ  সুইং এর মোকাবেলা, জীবন আপনাকে এই পরিস্থিতে যুক্তি ও বিশ্বাসের বাইরে নিয়ে যাবে, যুক্তির বাইরে একটা জগৎ আছে সেই অভিজ্ঞতা আপনি তখন পাবেন, হাজারটা যুক্তিও তখন আপনার জন্য অকার্য্যকর মনে হবে ।গতিটা ১২৮ kph  নয় বস, ১৫০-১৬০ kph, ১২৮ এ আধা সেকেন্ড সময় পেলে ১৬০ এ কয় সেকেন্ড সময় পাওয়া যাবে ? ।আপনি আমি চিরকাল যে মাঠে বন্ধু বান্ধব দের সাথে যে টেনিস বা টেপ টেনিস বল এ স্কুলের মাঠে খেলে এসেছি সেটাতে সর্বসাকূল্যে ১২০ kph এর বেশি ওঠেনা, আর ১২০ kph গতি কোন বন্ধুর হাতে থাকলে আমরা তার বল খেলতে পারিনা, সময় ক্ষেত্রে বলি অত জোরে বল করা যাবেনা বা বলি ওই আস্তে বল কর, গোয়ারের মত বল করিসনা ।তবু ওই টেনিস বলে ১২০ kph গতি ওঠে এমন লোক পাওয়া দুস্কর, অধিকাংশ বন্ধুদের হাতে গতি ১০০ থেকে  ১১০ kph এর বেশি হয়না ।এ জন্য রবি বা গ্রামীন ফোনের পেসার হান্টে সর্বোচচ ১৩০ এর ধারে কাছে গতির বোলার পায় ,পরবর্তীতে কোচ করিয়ে তাকে ১০-২০ kph স্পিড বাড়ানো হয়, সেটাও সময়, কঠোর পরিশ্রম ও খেলোয়াড়ের শরীরের গঠনের উপর নির্ভর করে । কারণ বলের গতি সেই বোলারের শরীর, উচ্চতা, পেশী ও বোলিং এ্যাকশন, স্ট্যমিনা অনেক কিছুর উপর নির্ভর করে ।তাহলে বুঝুন আমরা কি দেখেছি ! গতি কাকে বলে সে অভিজ্ঞতা আমাদের হয়নি ।আবার কথা হলো পেসার হান্টের ক্ষেত্রে  কাঠের(কর্ক) এর বল ব্যবহার করা হয় ।এরপরেও  ১৩০ গতির বোলার পাওয়া কষ্ট হয়ে যায় ।

(১০২)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

error: Content is protected !!