কালোজাদু-পৃষ্ঠা-১৫৭+১৫৮ | MEHBUB.NET

কালোজাদু-পৃষ্ঠা-১৫৭+১৫৮

         এবার বিবর্তন কে মিথ্যা করে দিই, অনেক মানুষতো পশুকামী, তাহলে মানুষ আর ওই পশুর সংকর তো আজ পর্য্যন্ত হতে দেখা যায়নি, তাই কিছু পশুপাখি আছে যাদের ডিএনএ বা জেনেটিক বিন্যাস সম্পূর্ণ সতন্ত্র এবং এদের থেকে সংকরায়ন সম্ভব নয়, তাহলে এরা নিশ্চই সৃষ্টিকর্তার থেকে আলাদা ভাবেই সৃষ্টি হয়ে এসেছে । এই দেখুন এভাবে বিবর্তন তত্ব মিথ্যা হয়ে গেলো ।দেখুন আমাদের মানব জাতির ইতিহাস বিগত ১৫০০ বছর আগে থেকে যথেষ্ট পরিমানে সংরক্ষিত আছে, একজন তো নয়ই, বিগত ১৫০০ বছর আগের ইতিহাসের সত্যতা প্রমানের জন্য  ০২ থেকে ০৫ জন ঐতিহাসিক এর দেওয়া তথ্য প্রমান রয়েছে তারপরেও আমাদের তর্ক-বিতর্ক শেষ হচ্ছেনা এই যে হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) এবং তার জীবনীর ঘটনা ও মোজেজা সত্য কিনা , বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সময়ের রাজা বাদশা দের জীবনীর ঘটনা গূলো সত্য না অসত্য সে বিষয়ে তর্ক বিতর্ক থেকেই যাচ্ছে, যেমন ধরুন আলাউদ্দিন খিলজী (১২৫০-১৩১৬ খ্রিস্টাব্দ ) বাংলাতে জন্ম গ্রহণ করা একজন দিল্লীর সুলতান, তাঁর শাসনামলে রাণী পদ্মাবতী কে নিয়ে সুলতান খলজীর সাথে জড়িয়ে আছে এক মুখরোচক কাহিনী বা মিথ । আসলে কী রাণী পদ্মাবতীর সাথে খলজীর কাহিনী কতটুকু সত্যি তা নিয়ে যুক্তি তর্কের শেষ নেই ।মালিক মূহাম্মাদ জায়সীর লেখা পদ্মাবতী কতটুকু সত্য তা নিয়ে ধোঁয়াশা কিন্তু এখনও কাটেনি, কারণ সুলতানের শাসনামলের ইতিহাসে পদ্মাবতীর নাম পাওয়া যায়নি । ১৩০৩ সালে আলাউদ্দিন খিলজীর চিতোর আক্রমণ ঐতিহাসিক ঘটনা হলেও রাণী পদ্মিনী বা পদ্মাবতীর কোন নাম একবারের জন্য ও ঐতিহাসিক কাহিনীতে আসেনি । রাণী পদ্মিনীর ঊল্লেখ পাওয়া যায় সর্বপ্রথম মালিক মুহাম্মাদ জায়সী রচিত পদ্মাবত (১৫৪০ সালে রচিত) এ । তাহলে কেন সুলতান খিলজীর মৃত্যুর ২০০ বছর পর এ রকম একটা কাহিনী রচিত হলো সেটাই তো বূঝে আসেনা।

(১৫৭)

আর সেটা নিয়ে হিন্দু মুসলমানে ৫০০ বছর তর্ক লেগে রয়েছে , অদ্ভুত আর বিচিত্র নয় কী বিষয়টা ।২০১৮ তে সেটা নিয়ে রণবীর সিং আর দিপীকা পাড়ুকোন অভিনীত পদ্মাবত মুক্তি পায় । যেখানে আলাউদ্দিন খলজীকে এমনভাবে দেখানো হয় যে সকল খারাপ গুনযুক্ত একমাত্র মানুষ তিনি । অথচ ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় ভারতের ইতিহাসে জনহিতৈষী শাসক ছিলেন তিনি । এই ধরুন মাত্র ৪৬ থেকে ৪৭ বছর আগে আমাদের দেশে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল ।

(১৫৮)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

error: Content is protected !!