কালোজাদু-পৃষ্ঠা-২৭১+২৭২ | MEHBUB.NET

কালোজাদু-পৃষ্ঠা-২৭১+২৭২

কিন্তু একটা জিনিস ভাবুন তো আপনার বাসাতে যদি ৭০ থেকে ৮০ বছর বয়স্ক আপনার কোন মুরব্বী ব্যাক্তি বেঁচে থাকেন তবে তার কাছ থেকে তার বোঝা শেখার শুরু থেকে এ পর্যন্ত আলোচনা করলে দেখা যাবে তিনি কল্পনা করেননি এমন প্রযুক্তির সুবিধা এখন তিনি ভোগ করছেন । তিনি কি কখনো আজ থেকে ৭০ বছর আগে মোবাইল এর কথা ভেবেছেন ?কম্পিউটার এর কথা ভেবেছেন তিনি তখন ? আমরা ভাবি যে আমাদের এই যুগের থেকে  উন্নত কিছু ছিলোনা  তবে সেটা বলা ভুল হয়ে যায় ।আমি মনে করি মানুষ যখন যেটার প্রয়োজন বোধ করেছে সেটাই আবিষ্কার করতে পেরেছে, সেই প্রয়োজনের বিপরীতে কিছু না কিছু আবিষ্কার হয়ে তার প্রয়োজন মিটিয়েছে ।আবার যুগের সাথে  সাথে সেই জিনিষটির যায়গাতে নতুন তার থেকে উন্নত বা সমমানের কিছু জিনিস আবিষ্কার হয়ে পুরাতন জিনিসটির ব্যবহার বিলুপ্ত হয়ে পুরাতন জিনিসটির স্থান হয় যাদুঘরে বা ইতিহাসের পাতাতে, বা কালের অতলে হারিয়ে যায় ।এই ধরুন চিঠি বহনে ডাকঘর ছিলোনা যে যুগে, এখনকার মত ইন্টারনেট বা জিমেইল ছিলোনা তখন কি করে দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্ভব হতো, দেখুন তখন কিন্তু কবুতরের মাধ্যমে দ্রুত চিঠি আদান প্রদান করা হতো। কোথায় কোন বাড়িতে চিঠি পৌছে দিতে হবে তা প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত  কবুতর ঠিকঠাক পৌছে দিতো ।এটা এখন আপনি কি ভাবতে পারবেন ? সামান্য একটা কবুতর কে প্রশিক্ষণ দিয়ে আপনি সুনির্দিষ্ট ঠিকানাতে চিঠি বহনের কাজটি করাতে পারবেন ?এটাও কি এখনকার বিজ্ঞানের থেকে কম বিস্ময়ের ? ধরুন একসময় বিনোদনের জন্য মানুষ উন্মুক্ত স্থানে  খেলাধুলা, যাত্রাপালা ইত্যাদির উপর নির্ভর ছিল , এক সময়ের রোমান গ্ল্যাডিয়েটর, নাচের গানের আসর, পুথি পাঠের আসর  সবই ছিল সরাসরি পর্যায়ের বিনোদন ।কিন্তু এখন এই গুলো নেই, কিন্তু দেখুন এর যায়গা নিয়ে নিয়েছে বর্তমানের টেলিভিশন প্রোগ্রাম গুলো, যে গুলো পূর্ব  থেকে শুটিং করা থাকে , যা কিছু সব ক্যামেরা এর কল্যানে ।কিন্তু দেখুন বিজ্ঞান বর্তমানে যাত্রাপালা বাদ দিয়ে টিভিতে সিনেমা দেখালেও বিনোদনের বেসিক কিন্তু পরিবর্তন হয়নি ।উন্মুক্ত নাচ গানের পর্যায় থেকে এটা এখন টি ভি তে পৌছেছে ।

(২৭১)

         কিতু সেটা কিন্তু নাচ গান বাদে অন্য কিছু হয়নি।প্রচারের মাধ্যম বদলেছে মাত্র ।যে গুলো আগের মানুষেরা বিনোদনের জন্য তাদের দেশে স্থানীয় পর্যায়ে আয়োজন করে দেখতো সেগুলো এখন টিভি ও ইন্টারনেটের বদলে স্থানীয় পর্যায়ের গণ্ডি ছাড়িয়ে ইন্টারনেট এর মাধ্যমে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে ।খেয়াল না করলে একবার খেয়াল করে দেখুন বর্তমানে টি ভি ও ব্যাকডেটেড হয়ে গেছে ।তার যায়গা ও দখল করে নিয়েছে ইন্টারনেট ।এভাবে মাধ্যম বদলায় মাত্র ।কিন্তু বিনোদনের ধারা , ধরন ও মাধ্যম একই আছে । কথাটা সেই রকম হাকিম নড়ে কিন্তু হুকুম নড়েনা ।আবার দেখুন মানুষের হিংস্র যত প্রবৃত্তি তা কিন্তু বদলায়নি একদমই ।এক সময় মানুষ যুদ্ধ বিগ্রহ করেছে , ইতিহাস সাক্ষী দেয় আজ থেকে ০৫ হাজার বছর আগেও মানুষ যুদ্ধ বিগ্রহ করেছে নানা কারনে। তখন তো মানুষের অফুরন্ত সবকিছু ছিল । তারপরেও মানুষ যুদ্ধ করেছে ।জনসংখ্যা ও তো কম ছিল আজকের থেকে শতগুণ ।খুন ,নারী- নির্যাতন, ধর্ষণ , ছিনতাই, ডাকাতি, মাদক , সব কিছু আজ থেকে  হাজার থেকে শত শত বছর আগেও ছিল, এখনো ভিন্ন ভিন্ন রুপে বিরাজমান । পার্থক্য একটাই আগে শিক্ষার হার কম ছিল। এখন ঘরে ঘরে সার্টিফিকেটধারী মানুষ ।কিন্তু আদিম মানুষ আর এখনকার অতি আধুনিক মানুষের ভিতর নিষ্ঠুরতাতে কোন পার্থক্য দেখছিনা।পত্রিকা ও টেলিভিশন, ফেসবুক  খুললেই দেশে বিদেশে শয়ে শয়ে মানুষ খুন, হত্যা, যুদ্ধ বিগ্রহ ধর্ষণ, বিকৃত যৌনাচার এর যত সব খবর শোনা যায় । তাহলে আদিম, মধ্যযুগীয় মানুষ দের সাথে আমাদের পার্থক্য টা হল তারা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ও সার্টিফিকেট বিহীন বর্বর ছিল।আর এখনকার অপরাধীরা সার্টিফিকেট ধারী শিক্ষিত,সজ্ঞানে করা জ্ঞানী অপরাধী। তাহলে দেখুন যুগ-কাল বদলেছে কিন্তু অপরাধ তার ধরন বদলে ভিন্ন রুপে অতি মাত্রাতে ভিন্ন মাত্রাতে বিরাজমান ।সব কিছুতে দেখুন পৃথিবীর শুরু থেকে ধারা ঠিক থেকে যাচ্ছে। একটা জিনিস লক্ষ করুন পৃথিবীতে রোগব্যাধির ব্যাপারটা খেয়াল করলে আপনার কাছে ব্যাপারটা আর পরিষ্কার হবে।

(২৭২)

পরবর্তী পৃষ্ঠা দেখুন

error: Content is protected !!